Bank job Preparation – General Science: হৃদপিন্ড ও হৃদরোগ, রক্ত ও রক্ত সঞ্চালন, রক্ত চাপ

Posted on

হৃদপিণ্ড এবং হৃদরোগ
১. হৃদপিণ্ড অবস্থানঃ ফুসফুস দুটির মাঝে ও মধ্যচ্ছদার উপরে।
২. মানুষের হৃদপিণ্ড যে পর্দা দিয়ে বেষ্টিত – দ্বিস্তরী পেরিকার্ডিয়াম পর্দা । উভয় স্তরের মাঝে থাকে পেরিকারডিয়াল ফ্লুইড যা হৃদপিণ্ডকে সংকোচনে সাহায়্য করে।বাইরের স্তরকে বলে fibrous এবং ভেতরের স্তরকে বলে serous .
৩.মানুষের হৃদপিণ্ড – চার প্রকোষ্ঠবিশিষ্ট । উপরের প্রকোষ্ঠ(chambers) দুটিকে ডান ও বাম অলিন্দ(Atrium) এবং নিচের প্রকোষ্ঠ দুটিকে ডান ও বাম নিলয়(Ventricle) বলে। অলিন্দের প্রাচীর পাতলা। নিলয়ের প্রাচীর পুরু ও পেশিবহুল। অলিন্দ দুটি আন্তঃঅলিন্দ পর্দা এবং নিলয় দুটি আন্তঃনিলয় পর্দা দিয়ে পৃথক থাকে।
৪. প্রকোষ্ঠগুলোর কাজ ও সংযুক্তি
ক. বাম অলিন্দ- চারটি পালমোনারি শিরার সাথে যুক্ত
খ. ডান অলিন্দ – একটি ঊর্ধ্ব মহাশিরা এবং একটি নিম্ন মহাশিরা যুক্ত থাকে।
গ. বাম নিলয় – মহাধমনি উৎপত্তি
ঘ. ডান নিলয় – ফুসফুসীয় ধমনি উৎপত্তি
৫. ধমনি কী – যেসব রক্তনালির মাধ্যমে রক্ত হৃদপিণ্ড থেকে দেহের বিভিন্ন অংশে বাহিত হয় ,তাকে ধমনি বা আর্টারি বলে।
৬. ধমনীর প্রাচীরে স্তর – তিনটি । প্রাচীর পুরু। কোন কপাটিকা থাকে না । ধমনি গহ্বর ছোট হয়।
৭. হার্ট ব্লক – হৃদপিণ্ডের স্পন্দন ত্রুটিপূর্ণ হলে বা উৎপন্ন প্রবাহ সঠিক পথে পরিবাহিত না হলে তাকে হৃদ অবরোধ বা হার্ট ব্লক বলে।
৮.হার্ট অ্যাটাক- হৃদ পিণ্ডের করোনারী ধমনি কোনো কারণে বন্ধ হয়ে গেলে হৃদপেশির রক্ত সরবরাহ বন্ধ হয়ে হার্ট অ্যাটাক হয়।
৯. হার্ট ফেলিওর – হৃদপিণ্ডের অলিন্দ অথবা নিলয় অথবা উভয়ের সংকোচন ক্ষমতা লোপ পাওয়াকে বলে হার্ট ফেলিওর।
১০. ECG কী – এর পূর্ণরূপ Electro cardiograph । হৃদপিণ্ড যখন স্পন্দিত হয় তখন এর বিভিন্ন অঞ্চলের পেশী থেকে যে বৈদ্যুতিক প্রবাহ সৃষ্টি হয় তা গ্রাফ কাগজে লিপিবদ্ধ করা হয়।
১১. Electro cardiogram – হৃদপেশির ক্রিয়াপদ্ধতি রেকর্ড করার যন্ত্র
১২. কোলেস্টেরল কী – বিশেষ ধরণের স্নেহ/লিপিড/স্টেরয়েড জাতীয় পদার্থ । রক্তে স্নেহ পদার্থের বাহক হিসেবে কাজ করে।
রক্তে কোলেস্টেরলের আধিক্য হৃদ রোগের আশংক্ষা বাড়ায়।
১৩. রক্তে কোলেস্টেরলের স্বাভাবিক মাত্রা – ১০০ থেকে ২০০ mg/dl । mg/dl পূর্ণরূপ Milligrams per Deciliter
১৪. লাইপোপ্রোটিন কী- স্নেহ ও প্রোটিন এর যৌগ। স্নেহের পরিমানের উপর ভিত্তি করে লাইপোপ্রোটিন দু রকম।
ক. উচ্চ ঘনত্ব বিশিষ্ট লাইপোপ্রোটিন(HDL-High Density Lipoprotein) / বেশী থাকা শরীরের জন্য উপকারী
খ.নিম্ন ঘনত্ব বিশিষ্ট লাইপোপ্রোটিন(LDL-Low Density Lipoprotein)/ বেশী থাকা শরীরের জন্য ক্ষতিকর / LDL < 150 mg/dl হলে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে ।
১৫. ধমনীর কাঠিন্য(Arteriosclerosis) কী – রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে গেলে রক্তনালীর অন্তঃপ্রাচীরের গাত্রে কোলেস্টেরল ও ক্যালসিয়াম জমা হয়ে রক্তনালী সংকুচিত হয় । ফলে ধমনি প্রাচীরের স্থিতিস্থাপকতা কমে যায় এবং শক্ত হয়ে যায়। ফলে ধমনি গাত্রে ফাটল দেখা দেয়। ফাটল দিয়ে রক্তক্ষরণ হয়ে জমাট বেঁধে রক্তপ্রবাহ বাধাপ্রাপ্ত হয়।
১৬. করোনারি থ্রম্বোসিস – হৃদপিণ্ডের করোনারি রক্তনালিকায় রক্ত জমাট বাঁধা
১৭. সেরিব্রাল থ্রম্বোসিস- গুরু মস্তিষ্কের রক্তনালিকায় রক্ত জমাট বাঁধা
১৮. হার্টবিট বা পালসরেট কাউন্ট করা হয় – হাতের রেডিয়াল ধমনিতে/কণ্ঠনালিতে/ সরাসরি বুকে কান পেতে । পালসের স্বাভাবিক গতি ৬০-১০০ বার প্রতি মিনিটে
১৯. প্রতি মিনিটে পালসের গতি ৬০ এর কম হতে পারে – হার্ট ব্লক বা জন্ডিসের কারণে
২০. ১০ ফারেনহাইট তাপমাত্রা বাড়ার জন্য পালসের গতি বাড়ে – প্রতি মিনিটে ১০ বার
২১. প্রতি মিনিটে পালসের গতি ১০০ এর বেশী হতে পারে – জ্বর ও শক(অচেতনতা) ও থাইরয়েড গ্রন্থির অতিকার্যকারিতার কারণে ।
২২. ফুসফুসীয় ধমনির কাজ কী – কার্বন ডাই অক্সাইড যুক্ত রক্ত হৃদপিণ্ড থেকে ফুসফুসে নিয়ে যায়।
২৩. পালমোনারি শিরার কাজ কী – অক্সিজেনসমৃদ্ধ রক্ত ফুসফুস থেকে হৃদপিণ্ডে নিয়ে যায়
২৪. শিরার প্রাচীন – পাতলা এবং ৩ স্তর বিশিষ্ট । গহ্বর বড় । কপাটিকা থাকে এর কারণে রক্ত একমুখে প্রবাহিত হয় ।
২৫. কৈশিক জালিকা গঠিত – এক স্তর বিশিষ্ট Endothelium দিয়ে
২৬. মানুষের হৃদপিণ্ড – মায়োজেনিক(Myogenic) । মানে বাইরের কোন উদ্দীপনা ছাড়া হৃদপেশী নিজে থেকে সংকোচন ও প্রসারণ করতে পারে ।

রক্ত ও রক্ত সঞ্চালন

১. আকার, আকৃতি ও কাজের ভিত্তিতে রক্তবাহিকা – তিন রকম । যথাঃ
– ক. ধমনিঃ অক্সিজেন-সমৃদ্ধ রক্ত হৃদপিণ্ড থেকে সারা দেহে নিয়ে যায় ।
– খ. শিরাঃ দেহের বিভিন্ন অঙ্গ থেকে কার্বন ডাই অক্সাইড সমৃদ্ধ রক্ত হৃদপিণ্ডে নিয়ে যায় ।
– গ. কৈশিক জালিকাঃ ধমনি ও শিরার সংযোগকারী কতগুলো জালিকাকার সুক্ষ্ম রক্তনালী। ব্যাপন প্রক্রিয়ায় পুষ্টি দ্রব্য ও অক্সিজেন আদান-প্রদান করে।
২. রক্ত কী – লাল বর্ণের অস্বচ্ছ,আন্তঃকোষীয় লবণাক্ত ও ক্ষারধর্মী তরল যোজক টিস্যু।
৩. একজন পূর্ণবয়স্ক সুস্থ মানুষের দেহে রক্ত থাকে প্রায় – ৫ থেকে ৬ লিটার। যা মানুষের দেহের মোট ওজনের ৮%
৪. রক্তের রং লাল কারণ – রক্তে হিমোগ্লোবিন নামক লৌহঘটিত প্রোটিন জাতীয় পদার্থ থাকে।
৫. রক্তের প্রধান উপাদান – রক্তরস/প্লাজমা(৫৫%) এবং রক্তকণিকা(৪৫%);রক্তরসে পানি থাকে ৯০%
৬. রক্তের অম্ল-ক্ষারের ভারসাম্য রক্ষা করে – রক্তরস
৭. রক্তরসের প্রতিরক্ষামূলক দ্রব্যাদি – অ্যান্টিটক্সিন ও অ্যাগ্লুটিনিন
৮. রক্তকণিকা প্রধানত – তিন প্রকার
– ক. লোহিত রক্ত কণিকা / এরিথ্রোসাইট – দ্বি-অবতল ও চাকতি আকৃতির/চ্যাপ্টা আকৃতির
– খ. শ্বেত রক্ত কণিকা / লিউকোসাইট – নির্দিষ্ট কোনো আকার নেই ; অ্যামিবার মতো দেহের আকার পরিবর্তন করতে পারে।
– গ. অণুচক্রিকা / থ্রম্বোসাইট/প্লেইটলেট – গোলাকার,ডিম্বাকার বা রড আকৃতির হতে পারে
৯. লোহিত রক্তকণিকা উৎপন্ন হয় – অস্থিমজ্জায়
১০. লোহিত রক্তকণিকা সঞ্চিত হয় – প্লিহায়(spleen)
১১. লোহিত রক্তকণিকার আয়ু – ১২০ দিন বা চার মাস ; এতে হিমোগ্লোবিন নামক রঞ্জক পদার্থ থাকায় এদের বর্ণ লাল হয়। এজন্য এদের Red Blood Cell বা RBC বলে।
১২. স্তন্যপায়ী প্রাণীদের রক্তে লোহিত কণিকা – নিউক্লিয়াসবিহীন। অন্যান্য মেরুদণ্ডী প্রাণীর রক্তের লোহিত কনিকায় নিউক্লিয়াস থাকে।
১৩. শ্বেত রক্তকণিকায় – নিউক্লিয়াসযুক্ত বড় আকারের কোষ।এগুলো হিমোগ্লোবিনবিহীন বিধায় শ্বেত/সাদা/ White Blood Cell(WBC)
১৪. ফ্যাগোসাইটোসিস প্রক্রিয়ায় জীবাণু ধ্বংস করে – শ্বেত রক্তকণিকা। ফ্যাগোসাইটোসিস হলো অ্যামিবার মতো দেহের আকার পরিবর্তন করে ক্ষণপদ সৃষ্টির মাধ্যমে রোগজীবাণু ভক্ষণ ।
১৫. শ্বেত রক্তকণিকার গড় আয়ু – ১ থেকে ১৫ দিন
১৬. গঠনগতভাবে বা সাইটোপ্লাজমে দানার উপস্থিতি বা অনুপস্থিতি অনুসারে শ্বেত রক্তকণিকা – দুই প্রকার
ক. অ্যাগ্রানুলোসাইট বা দানাবিহীন – এর আবার দুই প্রকার । লিম্ফসাইট ও মনোসাইট । এই মনোসাইটই মূলত ফ্যাগোসাইটোসিস প্রক্রিয়ায় রোগজীবাণু ধ্বংস করে। আর লিম্ফসাইট অ্যান্টিবডি গঠন করে।
খ. গ্রানুলোসাইট বা দানাযুক্ত – এরা আবার নিউক্লিয়াসের আকৃতির ভিত্তিতে তিন প্রকার।
– নিউট্রোফিলঃ ফ্যাগোসাইটোসিস প্রক্রিয়ায় রোগজীবাণু ধ্বংস করে
– ইওসিনোফিলঃ হিস্টামিন নামক রাসায়নিক পদার্থ নিঃসৃত করে এলার্জি প্রতিরোধ করে
– বেসোফিলঃ হেপারিন নিঃসৃত করে যার ফলে রক্ত রক্তবাহিকার ভিতর জমাট বাঁধে না। ইহাও হিস্টামিন নিঃসৃত করে এলার্জি প্রতিরোধ করে।
১৭. অণুচক্রিকা গড় আয়ু – ৫ থেকে ১০ দিন
১৮. অণুচক্রিকার প্রধান কাজ – রক্ততঞ্চন /রক্তজমাট(Blood Clotting)
১৯. ফাইব্রিন – এক ধরণের অদ্রবণীয় প্রোটিন যা দ্রুত সুতার মত জালিকা প্রস্তুত করে রক্ততঞ্চন ঘটায়।
২০. রক্ততঞ্চনে সাহায্য করে – ভিটামিন K এবং ক্যালসিয়াম আয়ন
২১. পারপুরা কি – অণুচক্রিকার সংখ্যা স্বাভাবিকের তুলনায় কমে যায়। জেঙ্গুজ্বর হলে এই অবস্থা হয়।
২২. থ্রম্বোসাইটোসিস কী – অণুচক্রিকার সংখ্যা স্বাভাবিকের তুলনায় বেড়ে যায়। ফলে রক্তনালীর অভ্যন্তরে রক্ত জমাট বেঁধে যায় । একে থ্রম্বোসিস বলে ।
২৩. পলিসাইথিমিয়া – লোহিত কণিকার সংখ্যা স্বাভাবিকের তুলনায় বেড়ে যাওয়া
২৪. এনিমিয়া – লোহিত কণিকার সংখ্যা স্বাভাবিকের তুলনায় কমে যাওয়া
২৫. লিউকেমিয়া/ ব্লাড ক্যান্সার – শ্বেত কণিকার সংখ্যা স্বাভাবিকের তুলনায় অত্যধিক বেড়ে যায় । সাধারণত ৫০,০০০-১০,০০,০০০
২৬. লিউকোসাইটোসিস – শ্বেত কণিকার সংখ্যা স্বাভাবিকের তুলনায় বেড়ে যায় । সাধারণত ২০,০০০-৩০,০০০ । নিউমোনিয়া হুপিংকাশিতে এই অবস্থা হয়। রোগের বিরুদ্ধে শরীরে ইমুনিটি তৈরির জন্য।
২৭. থ্যালাসিমিয়া – বংশগত রক্তের রোগ। রক্তের হিমগ্লোবিনের পরিমাণ কমে রক্তশূন্যতার সৃষ্টি করে । রোগীকে প্রতি তিন মাস অন্তর রক্ত সঞ্চালন করতে হয়। বাবা ও মায়ের অটোজোমে বিদ্যমান প্রচ্ছন্ন জিন একত্রিত হয়ে সন্তানে এই রোগ সৃষ্টি করে।
২৮. মানুষের রক্তে এন্টিজেন – ২ ধরনের
২৯. সিরাম কী – রক্ত জমাট বাঁধার পর রক্তে হালকা হলুদ যে স্বচ্ছ রস নিঃসৃত হয়। তাই সিরাম ।সিরামে কোন রক্ত রস থাকে না । সিরামে ২ ধরণের এন্টিবডি আছে ।
৩০. Rh factor কী – রেসাস(Rhesus) নামক বানরের লোহিত কনিকায় অবস্থিত একধরণের অ্যাগ্লুটিনোজেন/অ্যান্টিজেন । স্বামী – স্ত্রী একই Rh factor(হয় Rh positive নয় Rh negative) যুক্ত না হলে অনাগত সন্তানের নানান জটিলতা দেখা দেয়।

রক্ত চাপ
১. রক্তচাপ কী – হৃদপিণ্ডের সংকোচন ও প্রসারণের ফলে রক্ত ধমনীর মধ্য দিয়ে প্রবাহকালে ধমনি প্রাচীরে যে পার্শ্বচাপ সৃষ্টি হয়, তাকে রক্তচাপ বলে।
২. রক্তচাপ মাপা হয় – স্ফিগমোম্যানোমিটার নামক যন্ত্র দিয়ে
৩. স্বাভাবিক রক্তচাপকে প্রকাশ করা হয় – ১২০/৮০ mm Hg
৪. সিস্টোল(Systole) কী – হৃদপিণ্ডের স্বতঃস্ফূর্ত সংকোচন
৫. ডায়াস্টোল(Diastole)কী – হৃদপিণ্ডের স্বতঃস্ফূর্ত প্রসারণ
৬.সিস্টোলিক রক্তচাপ কী – সিস্টোল অবস্থায় ধমনিতে যে চাপ থাকে, তাকে সিস্টোলিক রক্তচাপ বলে।একজন সুস্থ ও স্বাভাবিক প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের সিস্টোলিক রক্তচাপ ১১০-১৪০ mm Hg
৭. ডায়াস্টোলিক রক্তচাপ কী – ডায়াস্টোল অবস্থায় ধমনিতে যে চাপ থাকে, তাকে ডায়াস্টোলিক রক্তচাপ বলে।একজন সুস্থ ও স্বাভাবিক প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের ডায়াস্টোলিক রক্তচাপ ৬০-৯০ mm Hg
৮. উচ্চরক্তচাপকে ডাক্তারি ভাষায় বলে – হাইপারটেনশন । সিস্টোলিক রক্তচাপ সবসময় ১৬০ mm Hg বা তার বেশী এবং ডায়াস্টোলিক রক্তচাপ সবসময় ৯৫ mm Hg বা তার বেশী হলে একে উচ্চরক্তচাপ বলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *