Home Blog Page 4

Latest Knowledge- বাংলাদেশ বিষয়াবলি: বাংলাদেশের নদ-নদী

0

১। বাংলাদেশের নদী গবেষণা ইনষ্টিটিউট কোথায় অবস্থিত?
উঃ ফরিদপুরে।
২। বাংলাদেশের দীর্ঘতম নদী কোনটি?
উঃ সুরমা (দৈর্ঘ্য ৩৯৯ কি.মি.)।
৩। বাংলাদেশের দ্বিতীয় দীর্ঘতম নদী কোনটি?
উঃ পদ্মা (দৈর্ঘ্য ৩৬৬ কি.মি.)।
৪। বাংলাদেশের দীর্ঘতম নদ কোনটি?
উঃ ব্রহ্মপুত্র।
৫। বাংলাদেশের প্রশস্ত নদী কোনটি?
উঃ যমুনা।
৬। বাংলাদেশের খরস্রোতা নদী কোনটি?
উঃ কর্ণফুলী।
৭। বাংলাদেশ ও মায়ানমারকে বিভক্তকারী নদী কোনটি?
উঃ নাফ নদী।
৮। নাফ নদীর দৈর্ঘ্য কত?
উঃ ৫৬ কি.মি.।
৯। শাখা-প্রশাখাসহ বাংলাদেশের নদ-নদীর সংখ্যা কত?
উঃ ২৩০টি।
১০। ভারত কোন নদীর উপর ফারাক্কা বাঁধ তৈরি করেছে?
উঃ গঙ্গা।
১১। পদ্মা নদী মেঘনার সাথে মিলিত হয়েছে কোথায়?
উঃ চাঁদপুর।
১২। বাংলাদেশের জলসীমার উৎপত্তি ও সমাপ্তি নদী কোনটি?
উঃ হালদা ও সাঙ্গু।
১৩। কাপ্তাই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোথায় অবস্থিত?
উঃ কর্ণফুলী নদীর উপর।
১৪। কাপ্তাই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ হয় কবে?
উঃ ১৯৬২ সালে।
১৫। কোন নদীতে বাধ দিয়ে কৃত্রিম হ্রদ তৈরি করা হয়েছে?
উঃ কর্ণফুলী নদীতে।
১৬। মায়ানমার থেকে আসা অভিন্ন নদী কতটি?
উঃ ৩টি (নাফ, সাঙ্গু ও মাতামুহুরী)।
১৭। বাংলাদেশ হতে ভারতে প্রবেশকারী নদী কতটি?
উঃ ১টি (কুলিখ)।
১৮। কোন নদীর মোহনায় নিঝুম দ্বীপ অবস্থিত?
উঃ মেঘনা।
১৯। বাংলাদেশের প্রধান নদী বন্দর কোনটি?
উঃ নারায়ণগঞ্জ।
২০। বাংলাদেশ ও ভারতকে বিভক্তকারী নদী কোনটি?
উঃ হাড়িয়াভাঙ্গা।

Latest Knowledge- বাংলাদেশ বিষয়াবলি: বাংলাদেশের সীমানা

0

১। বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় কবে?
উঃ ১৬ মে, ১৯৭৪ সালে।
২। বাংলাদেশের পূর্বে ভারতের কোন কোন প্রদেশ অবস্থিত?
উঃ আসাম, ত্রিপুরা ও মিজোরাম।
৩। বাংলাদেশের পশ্চিমে ভারতের কোন প্রদেশ অবস্থিত?
উঃ পশ্চিমবঙ্গ।
৪। বাংলাদেশের দক্ষিণে সীমানা কি?
উঃ বঙ্গোপসাগর।
৫। বাংলাদেশের দক্ষিণে ভারতের কোন প্রদেশ রয়েছে?
উঃ আন্দামান নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ।
৬। বাংলাদেশের সাথে ভারতের কয়টি রাজ্যের সীমান্ত রয়েছে?
উঃ ৫টি।
৭।বাংলাদেশের উত্তরে ভারতের কোন কোন প্রদেশ অবস্থিত?
উঃ পশ্চিমবঙ্গ, আসাম ও মেঘালয়।
৮। বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত চুক্তিতে কে কে স্বাক্ষর করেন?
উঃ শেখ মুজিব-ইন্দিরা গান্ধী।
৯। বাংলাদেশের সংবিধানের কোন সংশোধনীর মাধ্যমে বাংলাদেশ-ভারত স্থল সীমান্ত চুক্তি পাস হয়?
উঃ ১৯৭৪ সালের ৩য় সংশোধনীর মাধ্যমে।
১০। ভারতের সংবিধানের কোন সংশোধনীর মাধ্যমে বাংলাদেশ-ভারত স্থল সীমান্ত চুক্তি পাস হয়?
উঃ ২০১৫ সালে ১০০তম সংশোধনীর মাধ্যমে।
১১। বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে স্থলসীমান্ত চুক্তি পাস হয় কবে?
উঃ ২৩ নভেম্বর ১৯৭৪ সালে।
১২। বাংলাদেশ-ভারতের অমীমাংসিত সীমান্ত কত কি.মি.?
উঃ ২ কি.মি.।
১৩। বাংলাদেশ-ভারতের অমীমাংসিত এলাকা কোথায় অবস্থিত?
উঃ মুহুরীর চর (ফেনী)
১৪। বাংলাদেশের মোট সীমান্ত দৈর্ঘ্য কত?
উঃ ৫,১৩৮ কি.মি.।
১৫। বাংলাদেশের মোট স্থলসীমা কত?
উঃ ৪,৪২৭ কি.মি.।
১৬। বাংলাদেশের সাথে ভারতের সীমান্তের দৈর্ঘ্য কত?
উঃ ৪,১৪৪ কি.মি.।
১৭। বাংলাদেশের সাথে মায়ানমারের সীমান্তের দৈর্ঘ্য কত?
উঃ ২৮৩ কি.মি.।
১৮। বাংলাদেশের সমুদ্র উপকূলের দৈর্ঘ্য কত?
উঃ ৭১১ কি.মি.।
১৯। কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের দৈর্ঘ্য কত?
উঃ ১৫৫ কি.মি.।
২০। বাংলাদেশ-ভারত স্ট্রিপ ম্যাপ মানচিত্রে স্বাক্ষর করে কবে?
উঃ ২০ আগস্ট ২০১১।

Latest Knowledge- বাংলাদেশ বিষয়াবলি: বাংলাদেশের অবস্থান

0

১। বাংলাদেশের সবচেয়ে পূর্বের জেলা কোনটি?
উঃ বান্দরবান
২। বাংলাদেশের সবচেয়ে পশ্চিমের জেলা কোনটি?
উঃ নবাবগঞ্জ (চাঁপাই নবাবগঞ্জ)।
৩। বাংলাদেশের সবচেয়ে উত্তরের জেলা কোনটি?
উঃ পঞ্চগড়।
৪।বাংলাদেশের সবচেয়ে দক্ষিণের জেলা কোনটি?
উঃ কক্সবাজার।
৫।বাংলাদেশের সবচেয়ে উত্তরের থানা কোনটি?
উঃ তেতুলিয়া।
৬। বাংলাদেশের সবচেয়ে দক্ষিণের থানা কোনটি?
উঃ টেকনাফ।
৭। বাংলাদেশের সবচেয়ে পূর্বের থানা কোনটি?
উঃ থানচি।
৮। বাংলাদেশের সবচেয়ে পশ্চিমের থানা কোনটি?
উঃ শিবগঞ্জ।
৯। আয়তনে বাংলাদেশের বড় বিভাগ কোনটি?
উঃ চট্টগ্রাম বিভাগ (৩৩,৭৭১ বর্গ কি.মি.)।
১০। আয়তনে বাংলাদেশের ছোট বিভাগ কোনটি?
উঃ ময়মনসিংহ বিভাগ (১০,৫৮৪ বর্গ কি.মি.)।
১১। জনসংখ্যায় বাংলাদেশের বড় বিভাগ কোনটি?
উঃ ঢাকা বিভাগ।
১২। জনসংখ্যায় বাংলাদেশের ছোট বিভাগ কোনটি?
উঃ বরিশাল বিভাগ।
১৩। আয়তনে বাংলাদেশের বড় জেলা কোনটি?
উঃ রাঙামাটি (৬,১১৬ বর্গ কি.মি.)।
১৪। আয়তনে বাংলাদেশের ছোট জেলা কোনটি?
উঃ মেহেরপুর (৭১৬ বর্গ কি.মি.)।
১৫। বাংলাদেশের সাথে কয়টি দেশের সীমান্ত সংযোগ রয়েছে?
উঃ ২টি, ভারত ও মায়ানমার।

Latest Knowledge- বাংলাদেশ বিষয়াবলি: বাংলাদেশের ভূ-প্রকৃতি

0

১। বাংলাদেশের ভূ-খণ্ড সৃষ্টির পূর্বে এখানে কী ছিল?
উঃ বঙ্গখাত বা Bango-Basin।
ক) পাহাড়ি এলাকা খ) সোপান অঞ্চল গ) প্লাবন ভূমি।
২। বাংলাদেশের মধ্যে দিয়ে অতিক্রম করেছে কোন রেখাটি?
উঃ কর্কটক্রান্তি রেখা বা ৯০ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমা রেখা।
৩।ভূ-প্রকৃতি অনুসারে বাংলাদেশকে কয়ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে?
উঃ ৩ ভাগে।
৪। বাংলাদেশের পাহাড়গুলো গঠিত হয় কোন যুগে?
উঃ টারশিয়ারী যুগে।
৫। বাংলাদেশের বৃহত্তম এবং উঁচু পাহাড় কোনটি?
উঃ গারো পাহাড়।
৬। গারো পাহাড় কোন জেলায় অবস্থিত?
উঃ ময়মনসিংহ জেলায়।
৭। বাংলাদেশের অবস্থান কোন অঞ্চলে?
উঃ ক্রান্তীয় অঞ্চলে।
৮। রাজশাহী বিভাগের উত্তর-পশ্চিমাংশকে কি বলে?
উঃ বরেন্দ্রভূমি।
৯। বরেন্দ্রভূমির আয়তন কত?
উঃ ৯,৩২৪ বর্গ কি.মি.।
১০। বাংলাদেশের কোন জেলা সমুদ্র সমতল থেকে উঁচুতে অবস্থিত?
উঃ দিনাজপুর।
১১। সমুদ্র সমতল থেকে দিনাজপুরের উচ্চতা কত?
উঃ ৩৭.৫০ মিটার।
১২। মধুপুর ও ভাওয়াল গড় এর আয়তন কত?
উঃ ৪,১০৫ বর্গ কি.মি.।
১৩। পৃথিবীর বৃহত্তম ব-দ্বীপ কোনটি?
উঃ বাংলাদেশ।
১৪। ‘সোয়াচ অব নো গ্রাউন্ড’ খাদটি কোথায় অবস্থিত?
উঃ বঙ্গোপসাগরে।

Latest Knowledge- বাংলাদেশ বিষয়াবলি: বিল, হাওর, লেক, সমুদ্র, চর ও দ্বীপ

0

১/ বাংলাদেশের অবস্থান কোথায়?
=পদ্মা, ব্রহ্মপুত্র ও মেঘনার অববাহিকায়
২/ ভূ-প্রকৃতির ভিত্তিতে বাংলাদেশকে প্রধানত কয়টি শ্রেণিতে ভাগ করা যায়?
-৩টি
৩/ বাংলাদেশের ‘পশ্চিমা বাহিনীর নদী’ বলা হয় – বিল ডাকাতিয়াকে।
৪/ টাঙ্গুয়ার হাওর অবস্থিত – সুনামগঞ্জে।
৫/ বাংলাদেশের সর্বোচ্চ স্বাদু পানির হৃদ – বগা লেক (বান্দরবান)।
৬/ দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম কৃত্রিম লেক – মহামায়া (চট্টগ্রাম)।
৭/ বাংলাদেশের বৃহত্তম বিল – চলন বিল।
৮/ বাংলাদেশের মিঠাপানিত মাছের প্রধান উৎস – চলন বিল।
৯/ বিল ডাকাতিয়া অবস্থিত – খুলনা জেলার ডুমুরিয়ায়।
১০/ তামাবিল অবস্থিত – সিলেটে।
১১/ চট্টগ্রামের পাহাড়তলীতে অবস্থিত – ফয়’স লেক।
১২/ বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ হাওর – হাকালুকি হাওর।
১৩/ বিশ্বের বৃহত্তম আসমুদ্র সৈকত – কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত।
১৪/ যে সমুদ্র সৈকতে সূর্যোদয় ও সুর্যাস্ত দেখা যায় – কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত।
১। ছিটকরলা ছিটমহলটি যে জেলায় অবস্থিত – কুড়িগ্রাম
২। চর নিউটন যে জেলায় অবস্থিত – ভোলা
৩। কোলাবিল যে জেলায় অবস্থিত – খুলনা
৪। হাইল হাওর যে জেলায় অবস্থিত – মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জ
৫। সাজেক ভ্যালি যে জেলায় অবস্থিত – রাঙামাটি
৬। বলিশিরা ভ্যালি যে জেলায় অবস্থিত – মৌলভীবাজার
৭। টাঙ্গুয়ার হাওরের অপর নাম – রামসার হাওর
৮। টাঙ্গুয়ার হাওরকে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ ঘোষণা করে – ২০০০ সালে ইউনেস্কো
৯। বাইক্কা বিল যে জেলায় অবস্থিত – মৌলভীবাজার
১০। চর গজারিয়া যে জেলায় অবস্থিত – লক্ষ্মীপুর
১১। আড়িয়াল বিল যে জেলায় অবস্থিত – মুন্সিগঞ্জ
১২। আদিনাথ মন্দির যে জেলায় অবস্থিত – কক্সবাজার
১৩। যে জেলা দ্বীপ রাণি নামে পরিচিত – ভোলা
১৪। বাংলাদেশের যে পাহাড়ে ইউরেনিয়াম পাওয়া গেছে – কুলাউড়া পাহাড়ে
১৫। বাটালি পাহাড় যে জেলায় অবস্থিত – চট্টগ্রাম
১৬। বিল পদ্মা যে জেলায় অবস্থিত – মাদারীপুর
১৭। খোদাই বিল যে জেলায় অবস্থিত – চাঁদপুর
১৮।সুন্দরবনের মোট আয়তন – ১০,০০০ বর্গ কি.মি
১৯।সুন্দরবনের অপর নাম – বাদাবন
২০।বাংলাদেশের একমাত্র পাহাড়ী দ্বীপ মহেশখালীর আয়তন – ৩৬২.১৮ বর্গ কি.মি.
২১।সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান যে জেলায় অবস্থিত – হবিগঞ্জ
২২।বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে অভিন্ন নদী কতটি? উত্তর: ৫৪টি
২৩।মাধবকুণ্ড প্রাকৃতিক জলপ্রপাত কোন জেলায় অবস্থিত? উত্তর: মৌলভীবাজার
২৪।বাংলাদেশের মোট ভূমির কত % টারসিয়ারী যুগের পাহাড়?
= ১২%
২৫।বাংলাদেশের সর্বোচ্চ পবর্তশৃঙ্গ কোনটি ?
= তাজিংডং (বিজয় ) ১২৩১ মিটার
২৬।বরেন্দ্র অঞ্চলের পাহাড় সমূহ কত গড়ে মিটার ?
= ৬-১২
২৭।লালমাই পাহাড়ের গড় উচ্চতা কত ?
= ২১মিটার
২৮।বাংলাদেশের কত% ভূমি নদী বিধৌত এক বিস্তৃর্ণ সমভূমি ?
= ৮০%
২৯।বাংলাদেশের প্লাবন ভূমির আয়তন কত ?
১, ২৪, ২৬৬ বর্গ কি.মি
৩০। বাংলাদেশে ভূমিকম্প হয় কেন ?
= টেকনোটনিক প্লেটের সংঘর্ষে
৩১। বাংলাদেশের ভূমিকম্প মানচিত্রে কতটি বলয় আছে ?
= ৩টি
৩২।বাংলাদেশ ভূখণ্ডে কতটি নদী ?
= ৭০০টি
৩৩।বাংলাদেশের নদীর আয়তন কত ?
= ২২, ১৫৫ কি.মি.
৩৪। তিস্তা ব্যারেজ কবে স্থাপিত হয় ?
= ১৯৯৭-৯৮
৩৫।মাতামুহুরী নদীর উত্পত্তি স্থল
= লামার মইভার পর্বত
৩৬। তিস্তা নদীর বর্তমান দৈর্ঘ্য কত ?
= ১৭৭ কি. মি.
৩৭।বাংলাদেশের কত ভাগ ভূমি নদীবিধৌত এক বিস্তীর্ণ সমভূমি?
=৮০%
৩৮।১৯৭৪ সাল থেকে বর্তমানে মাথাপিছু জমির পরিমাণ কত কমেছে?
=০.০৩ একর
৩৯।বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ শৃঙ্গের নাম কী?
= কেওক্রাডাং
৪০।মধুপুর ও ভাওয়ালের সোপান ভূমির অন্তর্ভুক্ত কোন জেলাগুলো?
=ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, গাজীপুর ও ঢাকা জেলার অংশবিশেষ
৪১।মধুপুর ও ভাওয়ারের সোপানভূমির মাটি কেমন?
লালচে ও ধূসর
৪২। চলন বিলের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত নদি – আত্রাই।
৪৩। আড়িয়াল বিল অবস্থিত – মুন্সিগঞ্জে।

Latest Knowledge- বাংলাদেশ বিষয়াবলি: বাংলার পুরনো নাম মনে রাখার টেকনিক

0

কক্সবাজারের কিং ভোলাশাহ ও জামালসিং সিম্ফেনী মোবাইল কিনল তাই দেখে বিক্রমমুন্সী দিনাজপুরে গন্ডগোল করে রাংগা হারিকেন কিনল।
রাজাবাড়ীর গোয়ালে ভবানী গাইবান্ধে এদিকে নোয়াখালীদের শুধু ভুলামন আর ময়মনসিংহে নাসির আবাদ করতে গিয়ে কুষ্টিয়া নদীতে টিপরা কুমির আর চন্দ্রবোড়া সাপ দেখতে পেল।

এখন মিলিয়ে নিন
#বরিশাল-চন্দ্রদ্বীপ
#ভোলা-শাহবাজপুর
#জামালপুর-সিংহজানী
#ফেনী-শমসেরনগর
#মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপু¬র
#দিনাজপুর-গন্ডোয়ানাল¬্যান্ড
#রাংগামাটি-হরিকেল
#রাজাবাড়ি-গোয়ালন্দ
#গাইবান্ধা-ভবানীগঞ্জ
#নোয়াখালী-সুধারামপুর¬/ভুলুয়া
#ময়মনসিংহ-নাসিরাবাদ
#কুষ্টিয়া-নদীয়া
#কুমিল্লা-ত্রিপুরা
#কক্সবাজার-ফালকিং

বাংলার বাদযুক্ত নাম
#চট্টগ্রাম-ইসলামাবাদ¬/চট্টলা/চাটগাঁও
#সিলেট-জালালাবাদ/¬শ্রীহট্ট
#খুলনা-জাহানাবাদ
#বাগেরহাট-খলিফাবাদ
#ফরিদপুর-ফতেহাবাদ
#যশোর-খিলাফাতাবাদ
#ময়মনসিংহ-নাসিরাবাদ

অন্যান্য স্থান
#ঢাকা-জাহাঙ্গীরনগর
#মহাস্থানগড়-পুণ্ড্রব¬র্ধন
#ময়নামতি-রোহিতগিরি
#সোনারগাঁও-সুবর্ণগ্র¬াম
#লালবাগ দূর্গ-তেহাবাগ দূর্গ
#মুজিবনগর-বৈদ্যনাথতল¬া
#আসাদগেট-আইউবগেট
#সাতক্ষীরা-সাতঘরিয়া
#শেরে বাংলা নগর-আইউবনগর
#সেন্টমার্টিন-নারিকে¬ল জিঞ্জিরা
#নিঝুম দ্বীপ-বাউলার চর।

Latest Knowledge- বাংলাদেশ বিষয়াবলি: বাংলাদেশের সংবিধান সংক্ষেপে মনে রাখার উপায়

0

বাংলাদেশের সংবিধানের ১১টি ভাগ ও এর ১৫৩টি অনুচ্ছেদ রয়েছে। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক গুরুত্বপূর্ণ অনুচ্ছেদ মনে রাখার ক্ষেত্রে এই নোট’টি আপনার জন্য উপকারী হতে পারে।

সংবিধানের ১১টি ভাগ মনে রাখার উপায়:
টেকনিক >> প্ররা মৌনি আবিনিম বাংজ সংবি
১। প্র-প্রজাতন্ত্র (১-৭)
২। রা-রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি (৮-২৫)
৩। মৌ-মৌলিক অধিকার (২৬-৪৭)
৪। নি-নির্বাহী বিভাগ (৪৮-৬৪)
৫। আ-আইনসভা (৬৫-৯৩)
৬। বি-বিচার বিভাগ (৯৪-১১৭)
৭। নি-নির্বাচন (১১৮-১২৬)
৮। ম-মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক (১২৭-১৩২)
৯। বাং-বাংলাদেশের কর্মবিভাগ (১৩৩-১৪১)
৯ক। জ-জরুরী বিধানাবলী (১৪১ক-১৪১গ)
১০। সং-সংবিধান সংশোধন (১৪২)
১১। বি-বিবিধ (১৪৩-১৫৩)

অনুচ্ছেদ : ১-১২
১-প্রজাতন্ত্র
২-প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রীয় সীমানা
২ক-রাষ্ট্রধর্ম
৩-রাষ্ট্রভাষা
৪-জাতীয় সঙ্গীত,পতাকা ও প্রতীক
৪ক-জাতির পিতার প্রতিকৃতি
৫-রাজধানী
৬-নাগরিকত্ব
৭-সংবিধানের প্রাধান্য
৮-মূলনীতিসমূহ
৮-জাতীয়তাবাদ
১০-সমাজতন্ত্র ও শোষনমুক্তি
১১-গণতন্ত্র ও মানবাধিকার
১২-ধর্মনিরপেক্ষতা ও ধর্মীয় স্বাধীনতা।

অনুচ্ছেদ : ১৩-২৫
টেকনিক >>মালিক কৃষককে মৌ গ্রামে নিয়ে গিয়ে অবৈতনিক জনস্বাস্থ্যের জন্য সুযোগের সমতা সৃষ্টি করে। এতে অধিকার ও কর্তব্যরূপে নাগরিকরা নির্বাহী বিভাগ থেকে জাতীয় সংস্কৃতি ও জাতীয় স্মৃতি নিদর্শনের জন্য আন্তর্জাতিক শান্তির অংশীদার হলেন।
১৩.-মালিক-মালিকানার নীতি
১৪-কৃষক-কৃষক ও শ্রমিকের মুক্তি
১৫-মৌ-মৌলিক প্রয়োজনের ব্যবস্থা
১৬-গ্রাম-গ্রামীণ উন্নয়ন ও কৃষি বিপ্লব
১৭-অবৈতনিক-অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক শিক্ষা
১৮-জনস্বাস্থ্য-জনস্বাস্থ্য ও নৈতিকতা
১৯-সুযোগের সমতা-সুযোগের সমতা
২০-অধিকার ও কর্তব্যরূপে-অধিকার ও কর্তব্যরূপে কর্ম
২১-নাগরিক-নাগরিক ও সরকারি কর্মচারীদের কর্তব্য
২২-নির্বাহী বিভাগ থেকে-নির্বাহী বিভাগ হইতে বিচার বিভাগের পৃথকীকরণ
২৩-জাতীয় সংস্কৃতি-জাতীয় সংস্কৃতি
২৪-জাতীয় স্মৃতি নিদর্শন-জাতীয় স্মৃতিনিদর্শন প্রভৃতি
২৫-আন্তর্জাতিক শান্তি-আন্তর্জাতিক শান্তি, নিরাপত্তা ও সংহতির উন্নয়ন।

অনুচ্ছেদ : ২৬-৩৫
টেকনিক >>মৌলিক অধিকারের আইনের দৃষ্টিতে ধর্ম, সরকারি নিয়োগ ও বিদেশী খেতাব গ্রহণে সকলের আইনের আশ্রয় লাভের অধিকার রয়েছে। জীবনে ১বার গ্রেপ্তার হলে জবরদস্তি বিচার হয়।
২৬-মৌলিক অধিকারের-মৌলিক অধিকারের সহিত অসমঞ্জস আইন বাতিল
২৭-আইনের দৃষ্টিতে-আইনের দৃষ্টিতে সমতা
২৮-ধর্ম-ধর্ম প্রভৃতি কারনে বৈষম্য
২৯-সরকারি নিয়োগ-সরকারি নিয়োগলাভের সুযোগের সমতা
৩০-বিদেশী খেতাব গ্রহণে-বিদেশী খেতাব প্রভৃতি গ্রহণ নিষিদ্ধকরণ
৩১-আইনের আশ্রয় লাভের অধিকার-আইনের আশ্রয় লাভের অধিকার
৩২-জীবনে-জীবন ও ব্যক্তি-স্বাধীনতার অধিকার রক্ষণ
৩৩-গ্রেপ্তার-গ্রেপ্তার ও আটক সম্পর্কে রক্ষাকবচ
৩৪-জবরদস্তি-জবরদস্তি-শ্রম নিষিদ্ধকরণ
৩৫-বিচার-বিচার ও দন্ড সম্পর্কে রক্ষণ।

অনুচ্ছেদ : ৩৬-৪৪
টেকনিক >>চল, সমাবেশ ও সংগঠন করি! চিন্তা,পেশা,ধর্ম,সম্পত্তি ও যোগাযোগের অধিকার বলবত্ করি।
৩৬-চল-চলাফেরার স্বাধীনতা
৩৭-সমাবেশ-সমাবেশের স্বাধীনতা
৩৮-সংগঠন-সংগঠনের স্বাধীনতা
৩৯-চিন্তা-চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতা এবং বাক-স্বাধীনতা
৪০-পেশা-পেশা বা বৃত্তির স্বাধীনতা
৪১-ধর্ম-ধর্মীয় স্বাধীনতা
৪২-সম্পত্তি-সম্পত্তির অধিকার
৪৩-যোগাযোগের-গৃহ ও যোগাযোগের রক্ষণ
৪৪-অধিকার-মৌলিক অধিকার বলবতকরণ।

অনুচ্ছেদ : ৪৮-৫৪
টেকনিক >>রাষ্ট্রপতি তার ক্ষমার মেয়াদে দায়মুক্তি পেতে অভিশংসন ও অপসারনের ক্ষমতা স্পীকারকে দিলেন।
৪৮-রাষ্ট্রপতি-রাষ্ট্রপতি
৪৯-ক্ষমার-ক্ষমা প্রদর্শনের অধিকার
৫০-মেয়াদে-রাষ্ট্রপতি-পদের মেয়াদ
৫১-দায়মুক্তি-রাষ্ট্রপতির দায়মুক্তি
৫২-অভিশংসন-রাষ্ট্রপতির অভিশংসন
৫৩-অপসারনের-অসামর্থের কারনে রাষ্ট্রপতির অপসারন
৫৪-স্পীকার-অনুপস্থিতি প্রভৃতির কালে রাষ্ট্রপতি-পদে স্পীকার।

অনুচ্ছেদ : ৫৫-৫৮
টেকনিক >>মন্ত্রিসভায় মন্ত্রীগণ প্রধানমন্ত্রী ও অন্যান্য মন্ত্রীর পদের মেয়াদ ঠিক করেন।
৫৫-মন্ত্রিসভায়-মন্ত্রীসভা
৫৬-মন্ত্রীগণ-মন্ত্রীগণ
৫৭-প্রধানমন্ত্রী-প্রধানমন্ত্রী পদের মেয়াদ
৫৮-অন্যান্য মন্ত্রীর পদের মেয়াদ-অন্যান্য মন্ত্রীর পদের মেয়াদ।

অনুচ্ছেদ : ৬৫-৭৯
টেকনিক >>সংসদ সদস্যগণ শূন্য পারিশ্রমিকে অর্থদন্ড ও পদত্যাগের কারনে দ্বৈত অধিবেশনে ভাষনের অধিকার স্পীকারকে দিলেন। কিন্তু কোরাম না থাকায় স্থায়ী কমিটি ন্যায়পাল নিয়োগে বিশেষ অধিকার ও দায়মুক্তি পেতে সচিবালয় গঠন করেন।
৬৫-সংসদ-সংসদ প্রতিষ্ঠা
৬৬-সদস্যগণ-সংসদের নির্বাচিত হইবার যোগ্যতা ও অযোগ্যতা
৬৭-শূন্য-সংসদের আসন শূন্য হওয়া
৬৮-পারিশ্রমিকে-সংসদ সদস্যদের পারিশ্রমিক প্রভৃতি
৬৯-অর্থদন্ড-শপথ গ্রহণের পূর্বে আসন গ্রহণ বা ভোটদান করিলে সদস্যের অর্থদন্ড
৭০-পদত্যাগের কারনে-রাজনৈতিক দল হইতে পদত্যাগ বা দলের বিপক্ষে ভোটদানের কারনে আসন শূন্য হওয়া
৭১-সচিবালয়-সংসদ সচিবালয়।
৭২-অধিবেশনে-সংসদের অধিবেশন
৭৩-ভাষণের-সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণ ও বাণী
৭৩ক-অধিকার-সংসদ সম্পর্কে মন্ত্রীগণের অধিকার
৭৪-স্পীকার-স্পীকার ও ডেপুটি স্পীকার
৭৫-কোরাম-কার্যপ্রণালী-বিধি, কোরাম প্রভৃতি
৭৬-স্থায়ী কমিটি-সংসদের স্থায়ী কমিটিসমূহ
৭৭-ন্যায়পাল-ন্যায়পাল
৭৮-বিশেষ অধিকার ও দায়মুক্তি-সংসদ ও সদস্যদের বিশেষ-অধিকার ও দায়মুক্তি
৭৯-দ্বৈত-দ্বৈত সদস্যতায় বাধা

Latest Knowledge- বাংলাদেশ বিষয়াবলি: বাংলাদেশের ভূ- প্রকৃতি

0

বাংলাদেশ পলল গঠিত – আদ্র অঞ্চল
বাংলাদেশের পাহাড়ী অঞ্চল – উত্তর পূর্ব ও দক্ষিণ পূর্বে
উঁচু ভুমির অবস্থান – উত্তর পশ্চিমাংশে
বাংলাদেশের ভূ প্রকৃতি – নিচু ও সমতল
বাংলাদেশের অবস্থান – এশিয়া মহাদেশের দক্ষিণে
বাংলাদেশের অবস্থান – ২০ডিগ্রি ৩৪“ উত্তর অক্ষরেখা থেকে ২৬ ডিগ্রি ৩৮” উত্তর অক্ষরেখার মধ্যে
দ্রাঘিমা রেখা – ৮৮ডিগ্রি ০১” থেকে ৯২ডিগ্রি ৪১” পূর্ব দ্রাঘিমা
বাংলাদেশের মাঝামাঝি দিয়ে অতিক্রম করেছে – কর্কটক্রান্তি রেখা ( ২৩ডিগ্রি ৫”)
বাংলাদেশের উত্তরে – পশ্চিমবঙ্গ, মেঘালয়, আসাম
পূর্বে – আসাম, ত্রিপুরা, মিজোরাম,মায়ানমার
দক্ষিণে – বঙ্গোপসাগর
মোট আয়তন – ১,৪৭, ৫৭০ বর্গ কি.মি. !গেজেট হলে হবে ১,৪৭,৬১০ বর্গ কি.মি.।
পৃথিবীর বৃহত্তম ব দ্বীপ – বাংলাদেশ
বাংলাদেশের ভু খন্ড – উত্তর থেকে দক্ষিণে ঢালু
বাংলাদেশের প্রায় সমগ্র অঞ্চল – এক বিস্তীর্ন সমভূমি
ভূ প্রকৃতির ভিত্তিতে বাংলাদেশ ভাগ করা হয় – ৩ টি শ্রেণীতে
টারশিয়ারে যুগের পাহাড়সমূহ – মোট ভূমির প্রায় ১২%
হিমালয় পর্বত উথিত হয় – টারশিয়ারি যুগে

দক্ষিণ এশিয়ার বড় নদী – ৩ টি( গঙ্গা, ব্রক্ষপুত্র, মেঘনা)

দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলের পাহাড় সমূহ – রাঙ্গামাটি, বান্দরবান, খাগড়াছড়ি, কক্সবাজার এবং চট্টগ্রামের পূর্বাংশ
দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলের পাহাড়গুলোর উচ্চতা – ৬১০ মিটার
বাংলাদেশের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ – তাজিনডং ( বিজয়)
বিজয়ের উচ্চতা – ১২৩১ মিটার
বিজয় – বান্দরবানে অবস্থিত
বাংলাদেশের ২য় সর্বোচ্চ শৃঙ্গ – কিওক্রাডং( ১২৩০ মি)
আরো দুটি পাহাড় – মোদকমুয়াল ( ১০০০মি.), পিরামিড( ৯১৫মি)
এই পাহাড় গুলো গঠিত – বেলে পাথর, কর্দম, শেল পাথর দ্বারা
উত্তর উত্তরপূর্বাঞ্চলের পাহাড়সমূহ – ময়মনসিংহ, নেত্রকোনার উত্তরাংশ, সিলেটের উত্তর উত্তর পূর্বাংশ, মৌলভী বাজার, হবিগঞ্জের দক্ষিনের পাহাড়
পাহাড় গুলোর উচ্চতা – ২৪৪ মিটার
উত্তরের পাহাড়গুলো – টিলা নামে পরিচিত
টিলার উচ্চতা – ৩০ থেকে ৯০ মিটার
এ অঞ্চলের পাহাড় সমূহ – চিকনাগুল, খাসিয়া, জয়ন্তিয়া
প্লাইস্টোসিন কালের সোপান – দেশের মোট ভূমির ৮% নিয়ে গঠিত
প্লাইস্টোসিন কাল বলা হয় – আনুমানিক ২৫,০০০ বছর পূর্বের সময়কে
প্লাইস্টোসিন কালের সোপিনসমূহ – ৩ ভাগে বিভক্ত
বাংলাদেশে ছোট বড় নদী রয়েছে -৭০০ টি
নদীর গুলোর আয়তন দৈর্ঘ্যে – ২২,১৫৫ কি.মি
পদ্মা নদী ভারতে পরিচিত – গঙ্গা নামে
পদ্মা নদীর উৎপত্তিস্থল – হিমালয়ের গাঙ্গোত্রী হিমবাহে
গঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করে – রাজশাহী জেলা দিয়ে
পদ্মা নদী যমুনার সাথে মিলিত হয় – গোয়ালন্দে
ব্রক্ষপুত্রের প্রধান ধারা – যমুনা নদী

পদ্মা নদী মেঘনার নাথে মিলিত হয় – চাঁদপুরে
গঙ্গা পদ্মা বিধৌত অঞ্চলের পরিমান – ৩৪, ১৮৮ বর্গ কি.মি
পদ্মার শাখা নদী সমূহ – ভাগীরথী, হুগলি, মাথাভাঙ্গা, ইছামতি, ভৈরব, কুমার, কপোতাক্ষ, নবগঙ্গা, চিত্রা, মধুমতী, আড়িয়াল খাঁ
ব্রক্ষপুত্রের উৎপত্তি – তিব্বতের মানস সরোবর
বক্ষপুত্র নদী বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে – কুড়িগ্রাম জেলার মধ্য দিয়ে
১৭৮৭ সালের আগে ব্রক্ষপুত্রের প্রধান ধারাটি প্রবাহিত হতো – ময়মনসিংহের মধ্যে দিয়ে উত্তর পশ্চিম থেকে দক্ষিণ পূর্বে
ব্রক্ষপুত্র নদের গতি পরিবর্তিত হয় – ১৭৮৭ সালের ভূমিকম্পে
যমুনা নদীর শাখা নদী – ধলেশ্বরী
ধলেশ্বরী নদীর শাখা নদী – বুড়িগঙ্গা
যমুনা নদীর উপনদী সমূহ – ধরলা, তিস্তা, করতোয়া, আত্রাই
গঙ্গার সঙ্গমস্থল পর্যন্ত ব্রক্ষপুত্রের দৈর্ঘ্য – ২৮৯৭ কি.মি এবং আয়তন – ৫,৮০,১৬০ বর্গ কি.মি এবং এর ৪৪,০৩০ বর্গ কি.মি বাংলাদেশের
সুরমা ও কুশিয়ারা নদী মিলনে উৎপত্তি – মেঘনা নদী
সুরমা ও কুশিয়ার উৎপত্তি- আসামের বরাক নদী নাগা- মণিপুর অঞ্চলে
সুরমা ও কুশিয়ারা নদী বাংলাদেশে প্রবেশ করে – সিলেট জেলা দিয়ে
সুরমা ও কুশিয়ারা নদী মিলিত হয় – সুনামগঞ্জের আজমিরিগঞ্জে এবং কালনী নামে দক্ষিণ পশ্চিমে অগ্রসর হয়ে মেঘনা নাম ধারন করে
মেঘনা পুত্রের সাথে মিলিত হয় – ভৈরব বাজারের কাছে
বুড়িগঙ্গা, ধলেশ্বরী, ও শীতলক্ষ্যা মেঘনার সাথে মিলিত হয় – মুন্সিগঞ্জে
মেঘনার শাখা নদী – মুন, তিতাস, গোমতী, বাউলাই।
বাংলাদেশের দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলের প্রধান নদী – কর্ণফুলী
কর্ণফুলি নদীর উৎপত্তি – লুসাই পাহাড়ে
কর্ণফুলির দৈর্ঘ্য – ৩২০ কি.মি
কর্ণফুলির প্রধান উপনদী – কাপ্তাই, হালদা, কাসালাং, রাঙখিয়াং
বাংলাদেশের প্রধান সমুদ্র বন্দর – চট্টগ্রাম কর্ণফুলির তীরে অবস্থিত
তিস্তা নদীর উৎপত্তি – সিকিমের পার্বত্য অঞ্চল

বাংলাদেশের অধিকাংশ নদীর উৎপত্তিস্থল – ভারতে
বাংলাদেশে নদী পথের দৈর্ঘ্য – ৯৮৩৩ কিমি
সারাবছর নৌ চলাচলের উপযোগী নৌপথ – ৩,৮৬৫ কি.মি
অভ্যন্তরীন নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ তৈরি হয়েছে – ১৯৫৮ সালে
কাপ্তাই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকর প্রথম বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয় – পাকিস্তান আমলে
অভ্যন্তরীন নৌ পথে দেশের মোট বাণিজ্যিক মালামালের – ৭৫% আনা নেয়া হয়
বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠিত হয় – ১৯৭২ সালে
তিস্তা নদী – ভারতের জলপাইগুড়ি ও দার্জিলিং হয়ে ডিমলা অঞ্চল দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে
তিস্তা নদীরর গতিপথ পরিবর্তিত হয় – ১৯৮৭ সালের বন্যায়
বরেন্দ্রভূমি – নওগাঁ, রাজশাহী, বগুড়া, জয়পুরহাট, রংপুর ও দিনাজপুরের অংশ বিশেষ নিয়ে গঠিত
বরেন্দ্রভূমির আয়তন – ৯৩২০ বর্গ কি.মি
প্লাবন সমভূমি থেকে এর উচ্চতা – ৬ থেকে ১২ মিটার

বরেন্দ্র অঞ্চলের মাটি – ধূসর ও লাল বর্ণের
মধুপুর ও ভাওয়ালের সোপানের আয়তন – ৪,১০৩ বর্গ কি.মি
সমভূমি থেকে এর উচ্চতা – ৬থেকে ৩০ মিটার
মধুপুর ও ভাওয়ালের মাটি – লালচে ও ধূসর
লালমাই পাহাড় – কুমিল্লা শহর থেকে ৮ কি.মি পশ্চিমে
লালমাই পাহাড়ের আয়তন – ৩৪ বর্গ কি.মি
এই পাহাড়ের উচ্চতা–২১ মিটার
লালমাই পাহাড়ের মাটি- লালচে, এবং নুড়ি, বালি ও কংকর মিশ্রিত
বাংলাদেশের নদী বিধৌত বিস্তীর্ণ সমভূমি – প্রায় ৮০%
প্লাবন সমভূমির আয়তন – ১,২৪,২৬৬ বর্গ কি.মি
প্লাবন সমভূমি – দেশের উত্তর পশ্চিমে অবস্থিত রংপুর ও দিনাজপুর জেলার অধিকাংশ
উপকূলীয় সমভূমি – নোয়াখালী, ফেনীর নিম্নভাগ থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত

Latest Knowledge- বাংলাদেশ বিষয়াবলি: বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বইয়ৈর মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক তথ্য

0

১।মুক্তিযুদ্ধে মোট সেক্টর – ১১ টি
২।মুক্তিযুদ্ধের সময় ফরিদপুর ও টাঙগাইল কতো নং সেক্টরে ছিলো? – ৮ ও ১১ নং,
৩।মুক্তিযুদ্ধেরর প্রথমদিকে মুজিবনগর সরকার এর মিশন ছিলো – ২ টি
৪। শ্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেয় – ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ
৫। প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন – ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে
৬।কাদেরিয়া বাহিনী – টাঙ্গাইল অঞ্চলের
৭। বাংলাদেশের মানচিত্র খচিত স্বাধীন বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে – ডাকসু, ছাত্রলীগ
৮।রাজশাহী সারদা পুলিশ লাইন আক্রমণ করা হয় – ২৭ মার্চ
৯।আকবর বাহিনী – মাগুরা অঞ্চলের
১০।১৯৭১ সালে মুজিবনগর সরকার গঠিত হয় – ১০ ই এপ্রিল
১১।আওয়ামীলীগ সর্বাত্মক আন্দোলন শুরু করে – পার্লামেন্টারি পার্টির বৈঠকে
১২।বঙ্গবন্ধু, ভূট্রো ও ইয়াহিয়ার বৈঠক হয় – ঢাকায়
১৩।ছাত্রলীগের বাঝাইকৃত কর্মীদের নিয়ে গঠিত – মুজিব বাহিনী
১৪।২৫ শে মার্চ জাতীয় পরিষদ অধিবেশনে যোগদানে ব্যাপারে বঙ্গবন্ধুর শর্ত ছিলো – ৪ টি
১৫।অনিয়মিত বাহিনীর সরকারি নাম – মুক্তিযোদ্ধা

১৬।শিল্পী জর্জ হ্যারিসন – ইংল্যান্ড এর
১৭।বঙ্গবন্ধুর পক্ষে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ করেন – আব্দুল হান্নান, মেজর জিয়া
১৮। মুজিবনগর সরকারের কার্যক্রম – ২ ভাগে বিভক্ত
১৯।১৯৭০ সালো আওয়ামীলীগ ক্ষমতা হস্তান্তরের দাবি জানায় – গনরায়ের ভিত্তিতে
২০।১৯৭১ সালে ইয়াহিয়া ঢাকা সফরে আসেন – ১৪ ই মার্চ
২১। মুক্তিযুদ্ধে চিপ অব ষ্টাফ – লে: কর্ণেল রব ( ডেপুটি – গ্রুপ ক্যাপ্টেন এ কে খন্দকার)
২২।১৯৭১ সালে ৭ মার্চের জনসেবায় উপস্থিতি – ১০ লক্ষ প্রায়
২৩। অপারেশ সার্চ লাইট পরিকল্পনাকারী – ইয়াহিয়া খান
২৪।অপারেশন সার্চলাইট অনুযায়ী বঙ্গবন্ধু কে গ্রেফতার – রাত দেড়টায়
২৫।আল শামসের কার্যক্রম – আল – বদর এর অধীন
২৬।ঢাকার বাইরে অপারেশন সার্চ লাইট নেতৃত্ব – মেজর জেরারেল খাদিম হোসেন রাজা
২৭। শহীদ সাবের ও আনোয়ার পাশা – সাহিত্যিক
২৮।মার্চ মাসে অসহযোগ আন্দোলন শুরু হয় – ৩ তারিখে ই
২৯।পাকদের বিরুদ্ধে প্রথম প্রতিরোধ – জয়দেবপুর
৩০।ঢাকায় গেরিলা বাহিনী পরিচিত – ক্রাক প্লাটুন

৩১।এমভি সোয়াত ১৯৭১ সালের ৩রা মার্চ – চট্রগ্রামে
৩২।বাংলাদেশের প্রথম মিশন – কলকাতায়
৩৩। য়াহিয়া জাতীয় পরিষদ অধিবেশন স্থগিত করেন – ১ লা মার্চ, পুনরায়
– ২৫ মার্চ।

Latest Knowledge- বাংলাদেশ বিষয়াবলি: বাংলাদেশ ও বিশ্ব সভ্যতা

0

 

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় (৯ম-১০ম শ্রেণি)
১ম অধ্যায়: পূর্ব বাংলার আন্দোলন ও জাতীয়তাবাদের উথ্থান (১৯৪৭-১৯৭০)
১৯৬৬ সালে পাকিস্তান প্রসাশনের বৈষম্যমূলক চিত্রঃ
নং— খাত———————–বাঙালি———–পশ্চিম পাকিস্তান
১ প্রেসিডেন্টের সচিবালয়—-১৯%————-৮১%
২ দেশরক্ষা ——————–৮.১%————৯১.৯%
৩ শিল্প————————-২৫.৭%———-৭৪.৩%
৪ স্বরাষ্ট্র——————–২২.৭%———–৭৭.৩%
৫ তথ্য————————–২০.১%———–৭৯.৯%
৬ শিক্ষা————————-২৭.৩%———-৭২.৭%
৭ স্বাস্থ্য———————–১৯%————-৮১%
৮ আইন ————————-৩৫% ————৫%
৯ কৃষি—————————-২১%————-৭৯%

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় (৯ম-১০ম শ্রেণি)
২য় অধ্যায়: স্বাধীন বাংলাদেশ
৬১. ১৯৭১ সালের ৩ মার্চ কে জাতীয় পরিষদের অধিবেশন আহ্বায়ন করেন?
—–ইয়াহিয়া খান
৬২. ১৯৭১ সালের ৩ মার্চ এর জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থাগত ঘোষিত হয় কেন?
—– ভূট্টোর অধিবেশনে যোগ দিতে অস্বীকার করায়
৬৩. কি থেকে বাঙালি ঐক্যবদ্ধ হওয়ার প্রেরণা ও মুক্তিযুদ্ধের নির্দেশনা পায়?
—–১৯৭১ সালের ৭ মার্চের বঙ্গবন্ধুর ভাষণ থেকে
৬৪. ১৭ মার্চ টিক্কা খান,রাও ফরমান আলী বাঙালির উপর যে নৃশংস হত্যাকাণ্ড পরিচালনার নীল নকশা তৈরি করেন এটা ইতিহসে কি নামে পরিচিত?
——অপারেশন সার্চ লাইট
৬৫. ’অপারেশন সার্চ লাইট’ শুরু হয় কখন?
——১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে
৬৬. বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে কোন স্থানটির নাম ’’মুজিবনগর’’ করা হয়?
—— মেহেরপুর জেলার বৈদ্যনাথ তলার আম্রকাননকে
৬৭. কত সালে মুজিবনগর সরকার গঠিত হয়?
——১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল
৬৮. মুজিবনগর সরকার শপথ গ্রহণ করে কখন?
——১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল
৬৯. মুজিবনগর সরকারের রাষ্ট্রপতি ও মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক কে ছিলেন?
——-বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
৭০. মুজিবনগর সরকারের উপ-রাষ্ট্রপতি কে ছিলেন?
—— সৈয়দ নজরুল ইসলাম (বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি)

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় (৯ম-১০ম শ্রেণি)
২য় অধ্যায়: স্বাধীন বাংলাদেশ
৮১. পাকিস্তানের ২৪বছরের মধ্যে বঙ্গবস্ধু কত বছর কারাগারে কাটিয়েছেন?
——১২ বছর
৮২. কখন স্বাধীন বাংলাদেশের সরকার ভারত থেকে ঢাকায় এসে শাসন ক্ষমতা গ্রহণ করে?
——১৯৭১ সালের ২২ ডিসেম্বর
৮৩. কখন স্বধীনতার স্থপাথি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে এসে সরকার প্রধানের দায়িত্ব গ্রহণ করেন?
——১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারী
৮৪. কখন স্বধীনতার স্থপাথি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নৃশংস হত্যাকান্ডের শিকার হন?
—— ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট
৮৫. ১৯৭২ সালের ১০ এপ্রিল গণপরিষদের প্রথম অধিবেশনে কত সদস্যবিশিষ্ট্য ‘’খসড়া সংবিধান কমিটি’’ গঠন করেন?
—–৩৪ সদস্য বিশিষ্ট্য
৮৬. বঙ্গবন্ধু কত সালে ‘’বাংলাদেশ গণপরিষদ’’ নামে একটি আদেশ জারি করেন??
—–১৯৭২ সালের ২৩ মার্চ
৮৭. বঙ্গবন্ধু কাকে প্রধান করে ১৯৭২ সালে নতুন শিক্ষা কমিশন গঠন করেন?
—- বিশিষ্ট বিজ্ঞানী ড. কুদরত-এ-খুদা
৮৯. পাকিস্তান আমলে বাংলাদেশ ভূ-খণ্ডে কত হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয় ছিল?
—–৩৮ হজার
৯০. কত সালে বাংলাদেশে প্রথম সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়?
—-১৯৭৩ সালের ৭ মার্চ

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় (৯ম-১০ম শ্রেণি)
২য় অধ্যায়: স্বাধীন বাংলাদেশ
৭১. মুজিবনগর সরকারের প্রধান মন্ত্রী কে ছিলেন?
—– তাজ উদ্দিন আহম্দ
৭২. মুজিবনগর সরকারের অর্থ মন্ত্রী কে ছিলেন?
—– এম. মনসুর আলী
৭৩. মুজিবনগর সরকারের স্বরাষ্ট্র, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী কে ছিলেন?
—– এ.এইচ.এম কামরুজ্জামান
৭৪. মুজিবনগর সরকারের পররাষ্ট্র ও আইন-মন্ত্রী কে ছিলেন?
—– খন্দকার মোশতাক আহম্দ
৭৫. মুক্তিযুদে্ধ প্রধান সেনাপতি কে ছিলেন?
—– কর্নেল (অব.) এম.এ.জি. ওসমানী
৭৬. মুজিবনগর সরকারের উপদেষ্টা পরিষদ গঠিত হয় কত সদস্য বিশিষ্ট?
—– ৬ সদস্য বিশিষ্ট
৭৭. মুজিবনগর সরকারের প্রশাসনিক কাজ পরিচালনার জন্য কতটি মন্ত্রনালয় বা বিভাগ ছিল?
—–১২ টি
৭৮. মুজিবনগর সরকারের প্রধান বিচারপতি কে ছিলেন?
—– আবু সাঈদ চৌধুরী
৭৯. ১০ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার দেশকে কতটি সামরিক জোনে ভাগ করে?
—— ৪ টি সেক্টর
৮০. ১১ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার পুনরায় দেশকে কতটি সামরিক জোনে বা সেক্টরে ভাগ করে?
——১১ টি সেক্টরে

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় (৯ম-১০ম শ্রেণি)
২য় অধ্যায়: স্বাধীন বাংলাদেশ
৮১. পাকিস্তানের ২৪বছরের মধ্যে বঙ্গবস্ধু কত বছর কারাগারে কাটিয়েছেন?
——১২ বছর
৮২. কখন স্বাধীন বাংলাদেশের সরকার ভারত থেকে ঢাকায় এসে শাসন ক্ষমতা গ্রহণ করে?
——১৯৭১ সালের ২২ ডিসেম্বর
৮৩. কখন স্বধীনতার স্থপাথি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে এসে সরকার প্রধানের দায়িত্ব গ্রহণ করেন?
——১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারী
৮৪. কখন স্বধীনতার স্থপাথি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নৃশংস হত্যাকান্ডের শিকার হন?
—— ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট
৮৫. ১৯৭২ সালের ১০ এপ্রিল গণপরিষদের প্রথম অধিবেশনে কত সদস্যবিশিষ্ট্য ‘’খসড়া সংবিধান কমিটি’’ গঠন করেন?
—–৩৪ সদস্য বিশিষ্ট্য
৮৬. বঙ্গবন্ধু কত সালে ‘’বাংলাদেশ গণপরিষদ’’ নামে একটি আদেশ জারি করেন??
—–১৯৭২ সালের ২৩ মার্চ
৮৭. বঙ্গবন্ধু কাকে প্রধান করে ১৯৭২ সালে নতুন শিক্ষা কমিশন গঠন করেন?
—- বিশিষ্ট বিজ্ঞানী ড. কুদরত-এ-খুদা
৮৯. পাকিস্তান আমলে বাংলাদেশ ভূ-খণ্ডে কত হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয় ছিল?
—–৩৮ হজার
৯০. কত সালে বাংলাদেশে প্রথম সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়?
—-১৯৭৩ সালের ৭ মার্চ

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় ৯ম-১০ম শ্রেণি
১ম অধ্যায়: পূর্ব বাংলার আন্দোলন ও জাতীয়তাবাদের উথ্থান (১৯৪৭-১৯৭০)
১. ভারতবর্ষে বৃটিশ শাসনের অবসান হয়?
— ১৯৪৭ সালের ১৪ অগাস্ট রাতে
২. ১৯৩৭ সালে মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ মুসলিম লীগের দাপ্তরিক ভাষা উর্দু করার প্রস্তাব দিলে কোন বাঙালি নেতা এর বিরোধিতা করেন?
— শেৃরে বাংলার এ.কে. ফজলুল হক
৩. ১৯৪৭ সালের ১৭ মে কে উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করার প্রস্তাব দেন?
— চৌধুরী খালিকুজ্জামান
৪. ১৯৪৭ সালের ১৭জুলােই মাসে কে উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করার প্রস্তাব দেন?
— আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. জিয়াউদ্দিন আহমদ ৤
৫. ১৯৪৭ সালে কামরুদ্দিন আহমদের নিতৃত্বে যে দলটি মাতৃভাষায় ‘শিক্ষা দান’ এর দাবী জানায় ঐ দলটির নাম কি?
— গণ আজাদী লীগ
৬. ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আবুল কাশেমের নেতৃত্বে ২ সেপ্টেম্বর কোন সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠে ?
— তমদ্দুন মজলিস
৭. ১৯৪৭ সালের ১৬ডিসেম্বর মাসে উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় কোথায় ?
— পকিস্তানের করাচিতে একটি শিক্ষা সম্মেলনে
৮. ১৯৪৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারী কে গণপরিষদের ভাষা হিসেবে উর্দু ও ইংরেজীর পাশাপাশি বাংলার ব্যবহারের দাবি জানান??
— পাকিস্থানের গণপরিষদ সদস্য ধীরেন্দ্রন্থ দত্ত
৯. কত তারিখে ঢাকায় ’’সর্বদলীয় রাষ্ট্র ভাষা সংগ্রাম পরিষদ’’ পুনর্গঠিত হয়?
— ১৯৪৮ সালের ২ মার্চ
১০. কখন ’’বাংলা ভাষা দাবি দিবস’’ পালনের ঘোষণা দেওয়া হয় এবং ঐ দিন সাধারণ ধর্মঘট পালন করা হয়?
— ১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় (৯ম-১০ম শ্রেণি)
১ম অধ্যায়: পূর্ব বাংলার আন্দোলন ও জাতীয়তাবাদের উথ্থান (১৯৪৭-১৯৭০)
১১. ১৯৪৮ সালের ১৩-১৫ মার্চ কেন ধর্মঘট পালিত হয়?
— পিকেটিং করা অবস্থায় শেখ মজিব, শামসুল হক, অলি আহাদসহ ৬৯ জনকে গ্রেফতার করার কারণে
১২. বাধ্য হয়ে পূর্ব পাকিস্তানের মুখ্যমন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দীন কত দফা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন?
—- ৮ দফা
১৩. রাষ্ট্র ভাষা আন্দোলন ‘’ রাষ্ট্রের দুশমনদের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয় নাই’’ এ মর্মে মুখ্যমন্ত্র ভূল স্বীকার করে বক্তব্য দিবেন, এটা কোন দফার অন্তর্ভূক্ত?
— ৮ দফার
১৪. মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ কখন দ্ব্যর্থহীন কণ্ঠে ঘোষণা করেন যে, ‘’ উর্দুই হবে পাকিস্তানের একমাত্র ভাষা’’ ??
— ১৯৪৮ সালের ২১ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে ( বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) অনুষ্ঠিত জনসভায়
১৫. মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ কখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে উর্দুকেই পাকিস্তানের একমাত্র ভাষা হওয়ার কথা বলেন??
—১৯৪৮ সালের ২৪ মার্চ
১৬. পাকিস্তান সরকার কোন হরফে বাংলা প্রচলনের উদ্যোগ নিয়েছিল?
— আরবী হরফে
১৭. ১৯৫২ সালের ২৬ জানুয়ারী কোথায় পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্র খাজা নাজিম উদি্দন জিন্নাহকে অনুকরণ করে উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করার নতুন ঘোষণা করেন?
—ঢাকার পল্টন ময়দানে অনুষ্ঠিত জনসভায়
১৮. ১৯২ সালে নতুন ’’রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের’’ আহ্বায়ক কে ছিলেন ??
—আবদুল মতিন
১৯. ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারী সকাল ১১টায় ঢাকাবিশ্ববিদ্যালয়েরেএক সভায় কত জন করে মিছিল শুরু করার সিদ্ধান্ত হয়েছিল?
— ১০ জন করে
২০. ১৯৫২ সালের ২২ ফেব্রুয়ারী ঢাকায় বিশাল শোক র্যা লীতে পুলিশের হামলায় কে শহিদ হন??
— শফিউর রহমান

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় (৯ম-১০ম শ্রেণি)
১ম অধ্যায়: পূর্ব বাংলার আন্দোলন ও জাতীয়তাবাদের উথ্থান (১৯৪৭-১৯৭০)
২১. কত সালে বাংলাকে পাকিস্তানের সংবিধানে অন্তর্ভূক্ত করা হয়??
— ১৯৫৬ সালে
২২. পাকিস্তানি শাসন পর্বে বাঙালিদের জাতীয় মুক্তির প্রথম আন্দোলন কোনটি?
— ভাষা আন্দোলন
২৩. কত সাল থেকে ২১ ফেব্রুয়ারী শহিদ দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে?
— ১৯৫৩ সাল থেকে
২৪. কখন জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ইউনেস্কো বাংলাদেশের ২১ ফেব্রুয়ারির শহিদ দিবসকে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করে ??
— ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর
২৫. কাদের উদ্যোগে জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ইউনেস্কো বাংলাদেশের ২১ ফেব্রুয়ারির শহিদ দিবসকে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করে ??
— কানাডা প্রবাসী কয়েকজন বাঙালির উদ্যোগে ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকারের কুটনৈতিক তৎপরতায়
২৬. পাকিস্তানের মোট জনসংখ্যার কত শতাংশ বাঙালি ছিল??
— ৫৬ শতাংশ
২৭. কোন ধারণা থেকে বের হয়ে অসাপ্রদায়িক প্রগতিশীল বাঙালি রাজনৈতিক নেতৃত্ব ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন ঢাকার রোজ গার্ডেনে এক সম্মেলনের মাধ্যমে’’পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ’’ গঠন করে??
— মুসলিম লীগের দ্বিজাতিতাত্বিক ধ্যান-ধারণা থেকে
২৮. শেখ মজিবকে ১৯৪৯ সালে কারাগারে প্রেরনের পর তিনি কত দিন পর্যন্ত বন্দি জীবন কাটান?
— ১৯৫২ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারী পর্যগন্ত
২৯. ১৯৪৯ সালে গঠিত ‘’পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ’’ এর সভাপতি কে ছিলেন??
— মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী
৩০. কত সালে অসাম্প্রদায়িক রাজনৈতিক আদর্শ ধারণ কর ‘’পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ ‘’ দলের নাম ‘’পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ’’ নামকরণ করা হয়??
—১৯৫৫ সালে

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় (৯ম-১০ম শ্রেণি)
১ম অধ্যায়: পূর্ব বাংলার আন্দোলন ও জাতীয়তাবাদের উথ্থান (১৯৪৭-১৯৭০)
৩১. আওয়ামীগ কেন যুক্তফ্রন্ট গঠনের চেষ্টা করে?
— পূর্ব বাংলার প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনে মুসলিম লিগের শোচনীয় পরাজয় ঘটানোর জন্য
৩২. কত সালে যুক্তফ্রন্ট গঠনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়?
— ১৯৫৩ সালের ১৪ নভেম্বর
৩৩. যুক্তফ্রন্ট এ কতটি দফার উল্লেখ আছে?
—২১টি
৩৪. যুক্তফ্রন্ট কতটি দল নিয়ে গঠিত হয়?
—- ৪ টি
৩৫. পূর্ব বাংলার প্রাদেশিক পরিষদের ২৩৭টি মুসলিম আসনের মধ্যে যুক্তফ্রনাট কতটি আসন পায়?
—২২৩ টি
৩৬. পূর্ব বাংলার প্রাদেশিক পরিষদের ২৩৭টি মুসলিম আসনের মধ্যে মুসলিম লীগকতটি আসন পায়?
—৯টি আসন
৩৭. যুক্তফ্রনাটভূক্ত কৃষক-শ্রমিক পার্টির নেতা এ.কে. ফজলুল হক কখন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহন করেন?
—-১৯৫৪ সালের ৩ এপ্রিল
৩৮. যুক্তফ্রনাট সরকার কতদিন ক্ষমতায় ছিল?
—৫৬ দিন
৩৯. যুক্তফ্রনাট সরকারকে কে এবং কখন বরখাস্ত করেছিল?
——-পাকিস্তানের গভর্ণর জেনারেল গোলম মোহাম্মদ, ১৯৫৪ সালের ৩০ মে
৪০.আইয়ুব খান কিভাবে ক্ষমতা দখল করে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট হন??
—-১৯৫৮ সালের ২৭ অক্টোবর ইস্কান্দর মীর্জাকে উৎখাত ও দেশ ত্যাগে বাধ্য করে ৤

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় (৯ম-১০ম শ্রেণি)
১ম অধ্যায়: পূর্ব বাংলার আন্দোলন ও জাতীয়তাবাদের উথ্থান (১৯৪৭-১৯৭০)
৪১. সামরিক শাসনকে দীর্ঘস্থায়ী করতে আইয়ুব খান কি ব্যবস্থা চালু করেন??
—–মৌলিক গণতন্ত্র ব্যবস্থা
৪২. মৌলিক গণতন্ত্র ব্যবস্থায় পূর্ব পাকিস্তান ও পশ্চিম পাকিস্তান থেকে কত জন নির্বাচিত ইউনিয়ন কাউন্সিল সদস্য নিয়ে নির্বাচকমণ্ডলী গঠন করা হয়??
—–৮০ হাজার নির্বাচিত ইউনিয়ন কাউন্সিল সদস্য
৪৩. ১৯৫৫-৫৬ সাল থেকে ১৯৫৯-৬০ সাল পর্য ন্ত মোট বাজেটের পশ্চিম পাকিস্তানের ৫০০ কোটি টাকার বিপরীতে পূর্বপাকিস্তানের বরাদ্দ কত ছিল??
—–১১৩ কোটি ৩ লাখ টাকা
৪৪. ১৯৬০-৬১ সাল থেকে ১৯৬৪-৬৫ সাল পর্য ন্ত মোট বাজেটের পশ্চিম পাকিস্তানের ২২০০০ মিলিয়ণ টাকার বিপরীতে পূর্বপাকিস্তানের বরাদ্দ কত ছিল??
—–৬৪৮০ মিলিয়ন টাকা
৪৫. ১৯৬২ সালে আইয়ুব খানের প্রস্তাবিত শাসনতন্ত্রের বিরুদ্ধে ছাত্র সমাজ প্রতিবার মূখর হয়ে কত দফা কর্মসূচী ঘোষণা করেন?
—- ১৫ দফা
৪৬. ১৯৬৫ সালের ৬ সেপ্টেম্বর কার সাথে পাকিস্তানের যুদ্ধ হয়?
—- ভারতের সাথে
৪৭.১৯৬৫ সালের ৬ সেপ্টেম্বর পাকিস্তানের সাথে যুদ্ধ কত দিন স্থায়ী হয়?
—- ১৭ দিন
৪৮. ১৯৬৬ সালের ৫-৬ ফেব্রুয়ারী লাহোরে শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ব বাংলার অধিকার রক্ষার জন্য কত দফা দাবী তুলে ধরেন?
—- ৬ দফা দাবী
৪৯. আইয়ুব সরকার ৬দফা কর্মসূচীকে কি বলে আখ্যায়িত করেন?
—- বিচ্ছিন্নতাবাদী কর্মসূচী
৫০. আগড়তলা ষড়যন্ত্র মামলার প্রধান আসামী কে ছিলেন?
—- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় (৯ম-১০ম শ্রেণি)
১ম অধ্যায়: পূর্ব বাংলার আন্দোলন ও জাতীয়তাবাদের উথ্থান (১৯৪৭-১৯৭০)
৫১. আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় আসামী সংখ্যা কতজন ছিল?
—-৩৫ জন
৫২. আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার শুনানী কখন হয়?
—-১৯৬৮ সালের ১৯ জুন
৫৩. আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার শুনানী কোথায় হয়?
—-ঢকা ক্যান্টনমেন্টে প্রতিষ্ঠিত বিশেষ ট্রাইব্যুনালে
৫৪. কখন আইয়ুব খান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে বাধ্য হন?
—- ১৯৬৯ সালের ২২ ফেব্রুয়ারী
৫৫. কখন শেখ মুজিবুর রহমানকে ‘’বঙ্গবন্ধু’’ উপাধিতে ভূষিত করা হয়??
—- ১৯৬৯ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারী রেসকোর্স ময়দানে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ এর পক্ষ থেকে
৫৬. পাকিস্তানের সামরিক শাসক আইয়ুব খান পদত্যাগ করতে বাধ্য হন কেন?
—- ১৯৬৯ এর গণ অভ্যূথ্থানের ফলে
৫৭. ১৯৭০ এর নির্বাচনে মোট ভোটার সংখ্যা কত ছিল?
—- ৫ কোটি ৬৪ লাখ ভোটার
৫৮. ১৯৭০ এর নির্বাচনে পূর্বপাকিস্তানের মোট ভোটার সংখ্যা কত ছিল?
—- ৩ কোটি ২২ লাখ ভোটার
৫৯. ১৯৭০ সালের ১৭ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনে ৩০০টি আসনের মধ্যে কতটি আসন আওয়ামী লীগ পায়?
—-২৮৮ টি আসন
৬০. ১৯৭০ সালের ৭ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় আইন পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের জন্য নির্ধারিত ১৬৯টি আসনের মধ্যে কতটি আসন আওয়ামী লীগ পায়?
—-১৬৭টি আসন